Breaking News
Home / পাবনা সদর / শহরে বিদ্যুৎ বিভ্রাট জনজীবনে দুর্ভোগ

শহরে বিদ্যুৎ বিভ্রাট জনজীবনে দুর্ভোগ

রনি ইমরানঃ মেঘ বৃষ্টি হীন বর্ষাকাল সূর্যের কড়া তাপ ও ভ্যাপসা গরম অন্যদিকে থেমে থেমে লোডশেডিং এ জনজীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে শহরে। গতকাল সোমবার বিকেল ৫ টার আগে পাবনা শহরে কয়েক দফা বিদ্যুতের লোডশেডিং হয়। শহরের ১ নং ওর্য়াড গোবিন্দা এলাকায় বিদ্যুৎ আসতেই ২ নং ওর্য়াড গোপালপুর লোডশেডিং শুরু হয় আবার গোপালপুর বিদ্যুত আসলেও এক ঘন্টার ব্যবধানে বা তার বেশি সময়ে ফের সেখানে লোডশেডিং হয়। এক ঘন্টা বা তার বেশি সময় অন্তর অন্তর বিদ্যুৎ বিভ্রাট হতে দেখা যায় শহরের পৌর এলাকা গুলোতে। এসময় বিদ্যুত বিহীন শহরে মানুষের কর্মচঞ্চলতা থমকে যায়।শহরের অনেক দোকান অফিস ও বাসাবাড়িতে আলো বাতাসহীন মানুষগুলোকে গরমে অতিষ্ঠ হয়ে হাঁসফাঁস করতে দেখা যায়।হাসপাতাল ও বাসা বাড়িতে অসুস্থ রোগীরা আরো বেশি অসুস্থ হয়ে পড়ে। পাবনার বানিজ্যিক এলাকা বিসিক শিল্প নগরীতে প্রায় ২ শত টির মত শিল্প প্রতিষ্ঠান আছে। বিদ্যুত না থাকায় বেশিরভাগ কারখানার উৎপাদন বন্ধ থাকতে দেখা যায়। বিসিক পাবনার স্ট্রেট অফিসার আব্দুল লতিফ জানায়, শিল্প প্রতিষ্ঠান গুলোতে বিদ্যুত না থাকলে কারখানায় উৎপাদন বন্ধ হয়ে থাকে শ্রমিকরা অলস সময় কাটায়। এছাড়া বিদ্যুত না থাকলে আমাদের অফিসের কাজকর্মতেও স্থবিরতা চলে আসে। শহরের একজন শিল্প উদ্দোক্তা ও ব্যবসায়ী ইমরুল হাসান রন্টি জানায়,বিদ্যুত না থাকলে উৎপাদন বন্ধ থাকে শ্রমিকরা বসে থাকে এতে আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়। শহরের ইঁটকাঠের খাঁচার মত বাড়িগুলোতে লোডশেডিং এ চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। গৃহিণী সালমা আক্তার জানায়, গত কয়েকদিন বিদ্যুতের লোডশেডিং এর কারনে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছি। এমনিতেই ভ্যাপসা গরম তার উপর ঘনঘন লোডশেডিং। বাসার দৈনন্দিন কাজ বিদ্যুত না থাকলে ব্যাহত হয়। শিশুরা গরমে ঘুমাতে পারেনা। বাসায় অসুস্থ রোগীরা লোডশেডিং এ গরমে আরো অসুস্থবোধ করে। নাজনীন সুলতানা জানায়, আমরা বাসায় বাবা অসুস্থ তাকে বিছানায় শুয়ে থাকতে হয়। যেভাবে লোডশেডিং শুরু হয়েছে তাতে বাবা আরো অসুস্থবোধ করছে। বাসা শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বা জেনারেটর ব্যবস্থা না থাকায় খুব অস্বস্তিবোধ করছি। দীর্ঘদিন এমন লোডশেডিং দেখিনি। বাসায় মোমবাতি ছোটবাতি হাতপাখা হারিকেনের ব্যবহার শুরু হয়েছে। গতকাল দুপুরে পাবনা শহরের মার্কেটগুলোতে বিদ্যুত না থাকায় ক্রেতারা তুলনামূলক কম ছিল। দোকানী তৌহিদ জানায়, এমন লোডশেডিং কয়েক বছরে হয়নি। আর কয়দিন বাদে ঈদ এখন ব্যবসার সময় সবেমাত্র ঈদের বেচাকেনা শুরু হয়েছে কিন্ত এভাবে বিদ্যুত না থাকলে ক্রেতারা কেনাকাটা করতে আসেনা। চলতি সপ্তাহ ধরেই ভয়াবহ হয়ে উঠেছে লোডশেডিং। সন্ধ্যার পর লোডশেডিং এ দৈনিক পত্রিকাগুলোর সম্পাদনা ও পত্রিকা মেকিং এ বেগ পেতে হয়। বিদ্যুৎ না থাকায় কাজ বন্ধ থাকে। পাবনার নেসকো লিমিটেড ও পল্লী বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, গোটা দেশেই লোডশেডিং হচ্ছে । সূত্র জানায়,মূলত জাতীয় গ্রিড থেকে চাহিদার তুলনায় অনেক কম বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে, ফলে ঘন ঘন লোডশেডিং দিতে হচ্ছে। অবস্থা স্বাভাবিক হতে কত সময় লাগবে তা জানেনা তাঁরা।

Check Also

সরকার শিক্ষা ব্যবস্থা উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে – এমপি প্রিন্স

মিজানুর রহমান: পাবনা সদর উপজেলার চর ঘোষপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নবনির্মিত ভবনের উদ্বোধন করা হয়েছে। …

জনগনের স্বাস্থ্য নিয়ে কাউকে ছিনিমিনি খেলতে দেওয়া হবেনা-গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপি

পিপ : পাবনা সদর আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য ও পাবনা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *