মঙ্গলবার , ২৯ নভেম্বর ২০২২
Breaking News
Home / পাবনা সদর / ভাঁড়ারা ইউপি নির্বাচনের সতন্ত্র ঘোড়া প্রতিকের চেয়ারম্যান প্রার্থী সুলতান সাহামুদ খান বেসরকারি ভাবে বিজয়ী

ভাঁড়ারা ইউপি নির্বাচনের সতন্ত্র ঘোড়া প্রতিকের চেয়ারম্যান প্রার্থী সুলতান সাহামুদ খান বেসরকারি ভাবে বিজয়ী

পাবনা সদরের ভাঁড়ারা ইউপি নির্বাচনের নৌকাকে পরাজিত করে সতন্ত্র ঘোড়া প্রতিকের চেয়ারম্যান প্রার্থী সুলতান সাহামুদ খান বেসরকারি ভাবে বিজয়ী হয়েছেন।
বেসরকারি ফলাফলে নৌকার প্রার্থী দীর্ঘ ২৫ বছরের চেয়ারম্যান মো. আবু সাঈদ খানকে ৫ হাজার ৬ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করেছেন স্বতন্ত্র (বিদ্রোহী) চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. সুলতান মাহমুদ খান।
বুধবার (১৫ জুন) রাত ১০টার দিকে জেলা নির্বাচন অফিসের সম্মেলন কক্ষে বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা করেন জেলা সিনিয়র নির্বাচন অফিসার মাহবুবুর রহমান। এসময় উপস্থিত ছিলেন পাবনা সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা কায়ছার মোহাম্মদ।
বেসরকারি ফলাফলে মোট ১৬টির কেন্দ্রের মধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মো: আবু সাঈদ খান পেয়েছেন ১১ হাজার ৩৩৭ ভোট। বিজয়ী প্রার্থী মো: সুলতান মাহমুদ ১৬ হাজার ৯৩৭ ভোট।
ব্যপক প্রশাসনিক নিরাপত্তার ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে শান্তিপূর্ণ ভাবে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।
নজিরবিহীন নিরাপত্তায় পাবনার সেই ইউপিতে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।
বুধবার (১৫ জুন) সকাল ৯টা থেকে শুরু হয়েছে ভোটগ্রহণ, বিরতিহীনভাবে চলবে বিকেল ৫টা পর্যন্ত।
ভোট দিতে সকাল থেকেই ভোটারদের দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করতে দেখা গেছে। পুরুষ ও নারী উভয় ভোটারদের রয়েছে লম্বা লাইন। নানা শঙ্কার মধ্যেও পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে ভোটাররা লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছেন।
এদিকে ভোটকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে রাখা হয়েছে গোটা ভাঁড়ারা ইউনিয়ন। ৫ শতাধিক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন। বিভিন্ন জায়গায় বসানো হয়েছে চেকপোস্ট। সন্দেহভাজনদের করা হচ্ছে জিজ্ঞাসাবাদ। কিছুক্ষণ পরপর সাইরেন বাজিয়ে চলছেন পুলিশ, ডিবি ও র‌্যাবের সদস্যরা। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) তৎপরতাও চোখে পড়ার মতো।
গত ডিসেম্বরে প্রচারণাকালে এক চেয়ারম্যান প্রার্থী নিহতের ঘটনায় দেশব্যাপী আলোচনায় আসে ইউনিয়নটি। ফলে এবার ভাঁড়ারার দিকে তাকিয়ে পাবনাবাসীসহ গোটা বাংলাদেশ, তাই অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন উপহার দিতে প্রস্তুত নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসন। স্মরণকালের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে গোটা ভাঁড়ারা ইউনিয়ন জুড়ে।
আতঙ্কের জনপদ খ্যাত এই ইউপিতে ৩৮ হাজার ২শ ৫৭ জন ভোটারের মধ্যে নারী ভোটার ১৮ হাজার ২৯৩ জন এবং পুরুষ ভোটার ১৯ হাজার ৯৬৪ জন। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদন্দ্বিতা করছেন ২ জন প্রার্থী। আর ৯টি সাধারণ ও ৩টি সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৫৩ জন, এর মধ্য নারী সদস্য পদে ১৩ জন এবং পুরুষ সদস্য পদে ৪০ জন প্রার্থী। এই ইউনিয়নে ভোট কেন্দ্র রয়েছে ১৬টি, বুথ রয়েছে ১০৪টি। সবগুলো কেন্দ্রকেই ঝুঁকিপূর্ণ ধরে প্রতিটি কেন্দ্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য নিয়োজিত থাকবেন ১৪ জন করে।
পাবনার পুলিশ সুপারের তদারকিতে শুধুমাত্র এই ইউনিয়নেই দায়িত্ব পালন করছে ৪ জন এডিশনাল এসপির নেতৃত্বে ৪টি সেক্টর টিম। ২ প্লাটুন বিজিবি, র‌্যাবের ২টি টিম, ফায়ার সার্ভিসের ২টি টিম, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ১১ জন, ১ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, মোবাইল টিম ১৬টি, স্ট্রাইকিং ফোর্স ৮টি, চেকপোস্ট ৪টা এবং সিটিইউটি টিম রয়েছে ২টা। এছাড়াও ১২ জনের একটি রিজার্ভ টিম রাখা হয়েছে। সবমিলিয়ে ৫ শতাধিক আইনশৃঙ্লা বাহিনীর সদস্য এই নির্বাচনে দায়িত্ব পালন করবেন।
পাবনা সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও দায়িত্বপ্রাপ্ত রিটার্নিং কর্মকর্তা কায়সার মোহাম্মদ বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। আশা করি পুরো সময়টা শান্তিপুর্ণ ও সুষ্ঠু শেষ করতে পারবো, এ জন্য ব্যাপক নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এর আগে একটি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের জন্য এতো নিরাপত্তা ব্যবস্থা রাখা হয়নি। বলতে গেলে ৩-৪টি ইউনিয়ন পরিষদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা সাজানো হয়েছে শুধু এই ইউনিয়ন ঘিরে।
পাবনা পুলিশ সুপার (এসপি) মহিবুল ইসলাম খান বলেন, নির্বাচন অবাধ ও শান্তিপূর্ণ করতে আমরা সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। পুলিশের পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনকে সব ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে। আশা করছি, কোনও অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটবে না। কেউ বিশৃঙ্খলার চেষ্টা করলে বিন্দুমাত্র ছাড় দেয়া হবে না। নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে শেষ করতে যা যা করণীয় তাই তাই করবে প্রশাসন।
উল্লেখ্য, গত বছরের ১১ ডিসেম্বর নির্বাচনী প্রচারণার সময় পাবনা সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী আবু সাঈদ খান (৫২) ওরফে সাঈদ চেয়ারম্যানের সঙ্গে সংঘর্ষে আরেক চেয়ারম্যান প্রার্থী ইয়াসিন আলম (৩৫) নিহত হন। এঘটনায় ওই বছরের ২৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য ভাঁড়ারা ইউনিয়ন পরিষদের সব (চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত ওয়ার্ড সদস্য, সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য) পদের নির্বাচন স্থগিত করে নির্বাচন কমিশন। পরে গত ২৮ এপ্রিল নির্বাচন কমিশন থেকে ১৫ জুন ভোটগ্রণের তারিখ নির্ধারণ করে তফসিল ঘোষণা করা হয়।

Check Also

সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম শিবলী ও সেরাজুল ইসলাম তোতা পাবনার সাংবাদিকদের মনিকোঠায় চিরদিন বেঁেচ থাকবেন-স্মরণসভায় বক্তারা

পিপ : পাবনা প্রেসক্লাবের প্রয়াত সদস্য ও পাবনা রির্পোটার্স ইউনিটির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি শফিকুল ইসলাম শিবলী …

নির্বাচনী লড়াইয়ের জন্য সকল নেতাকর্মীদের প্রস্তুত হতে হবে-এমপি প্রিন্স

মিজানুর রহমান: পাবনা পৌর ১২ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ এর ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *