Breaking News
Home / পাবনা সদর / ব্যাপক উৎসবমুখোর পরিবেশে পাবনায় রথ যাত্রা অনুষ্ঠিত। ৭দিনব্যাপী বসেছে মেলা

ব্যাপক উৎসবমুখোর পরিবেশে পাবনায় রথ যাত্রা অনুষ্ঠিত। ৭দিনব্যাপী বসেছে মেলা

দেশের সনাতনী হিন্দু সম্প্রদায় মানুষের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব রথ যাত্রা। তারই অংশ হিসাবে জেলা শহর পাবনাতে হিন্দু সম্প্রদারে মানুষেরা উৎসবমুখর পরিবেশে মধ্যদিয়ে এই ধর্মীয় উৎসব পালন করেছে।
০১ জুলাই ( শুক্রবার) বিকালে জেলা সদরের প্রধান ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান শ্রী শ্রী জয়কালী বাড়ি মন্দির প্রাঙ্গণ থেকে প্রথম রথ যাত্রা বের করেন একাংশের ভক্ত বৃন্দ। পরে পৌর এলাকার রাধানগর ও গাংকুলা পালপাড়া এলাকা থেকে রথের ইসকন সমর্থক ও ভক্ত বৃন্দ আরো এক বিশাল রথের শোভাযাত্রা বের করেন।
ব্যাপক প্রশাসনিক নিরাপত্তা ব্যাবস্থার মধ্যদিয়ে রথের শোভাযাত্রা করেন সনাতনী হিন্দু সম্প্রদায়ের ভক্ত বৃন্দরা। ধর্মীয় নানা আনুষ্ঠানিকতার মধ্যদিয়ে এই রথের যাত্রাতে জেলা সদরে কয়েক হাজার নারী পুরুষ অংশগ্রহণ করেন। শতবছরের এই ধর্মীয় ঐতিহ্য ধরে রাখতে রথ যাত্রাকে উপলক্ষ করে শহরের প্রাণকেন্দ্রে মন্দির এলাকাতে বসেছে সাতদিনব্যাপী রথের মেলা।
করোনাকালীন দীর্ষ দুই বছর সরকারি বিধিনিষেধ থাকায় এই ধর্মীয় উৎসব তেমন ভাবে পালিত হয়নি। তাই এবারে আয়োজনে ভক্তদের উপস্থিতি ছিলো চোখে পরারমত।
আষাঢ় মাসে আয়োজিত অন্যতম প্রধান হিন্দু উৎসব এটি। ভারতীয় রাজ্য ওড়িশা ও পশ্চিমবঙ্গে এই উৎসব বিশেষ উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে পালিত হয়। দীর্ঘ বিচ্ছেদের পর কৃষ্ণের বৃন্দাবন প্রত্যাবর্তনের স্মরণে এই উৎসব আয়োজিত হয়ে থাকে।
ভারতের সর্বাধিক প্রসিদ্ধ রথযাত্রা ওড়িশার পুরী শহরের জগন্নাথ মন্দিরের হয় । বাংলাদেশের ইসকনের রথ ধামরাই জগন্নাথ রথ ও পাবনার রথ বিশেষ প্রসিদ্ধ। রথযাত্রা উপলক্ষে বিভিন্ন স্থানে মেলার আয়োজন করা হয়। তবে জেলার শতবছরের ঐতিহ্যমন্ডিত পুরাত রথ গাড়ি যাত্রাতে অংশ গ্রহণ করতে পারেনি। বিশাল আকৃতি ও সড়কের কাজ করাতে রথের গাড়িটি এবারে যাত্রাতে অংশ গ্রহণ করা হলোনা।
ঢাক, ঢোল আর ধর্মীয় সঙ্গীতের মধ্যদিয়ে রথের রশি টেনেছেন ভক্তরা। তরুন প্রজন্মের ছেলে মেয়েরা উৎসবে সড়ক ও মন্দির প্রাঙ্গনে নাচ গান করেন। সড়কের দুইধারে ভক্তবৃন্দরা ফুলদিয়ে রথে গাড়িতে শুভেচ্ছা জানান।
আগামী ৮ জুলাই উল্টা রথ যাত্রার মধ্যদিয়ে শেষ হবে এই রথের উৎসব।
রথ যাত্রা নিয়ে শ্রী ম্রী জয়কালী বাড়ি মন্দির কমিটির নেতা শ্রী প্রলয় চাকী বলেন, সারা বাংলাদেশে কিন্তু এই রথে মেলা বা রথ যাত্রা হয়না। এই রথ উৎসব আমাদের ও দেশের ইতিহাস ঐতিহ্যের অংশ। এই রথ উপলক্ষে আশাপাশের অনেক জেলা উপজেলা থেকে ভক্তবৃন্দের আগমন ঘটে। বিগত দুই বছর অনুষ্ঠান করতে পারিনি। তাই এবারে আয়োজন একটু সুন্দর ভাবে করার চেষ্টা করা হয়েছে। মন্দির কমিটির সকল সদস্য শ্রমদিয়েছেন। ভক্তবৃন্দরা এই রথের গাড়ির একটিবার রশি ধরার, প্রনাম, ভক্তি আর শ্রদ্ধা জানানোর জন্য আসেন। আমরা সকলের প্রতি কৃতজ্ঞ যাদের উপস্থিতিতে রথের যাত্রা ও মেলা উৎসবমুখর হয়ে উঠেছে।
পাবনা জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আলম বলেন, ধর্ম যারযার উৎসব সবার। যেহেতু এটি অনেক মানুষের সমাগম নিয়ে হয়ে থাকে। তাই নিরাপত্তা ব্যবস্থা দেখার দায়িত্ব আমাদের। দুটি গ্রুপ সল্প সময়ের ব্যবধানে শোভাযাত্রা করছে। তাই নিজে মাঠে থেকে প্রশাসনের সকল নিরাপত্তা ব্যবস্থা মাঠে রেখে রথের যাত্রা সুন্দর ভাবে করতে সহযোগিতা করা হয়েছে। কোন ধরনে ঘটনা যাতে না হয় তার জন্য সাদা পোষাকে পুলিশ শোভাযাত্রার আগে ও পিছে দেয়া হয়েছিলো। আমরা সকল ধর্মের মানুষদের সেবার জন্য কাজ করছি। সবাই আমাদের কাছে সমান। জেলা পুলিশ সুপার মোহম্মদ মহিবুল ইসল্ম খানের নির্দেশে সকল ব্যবস্থা করা হয়েছে।

Check Also

সরকার শিক্ষা ব্যবস্থা উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে – এমপি প্রিন্স

মিজানুর রহমান: পাবনা সদর উপজেলার চর ঘোষপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নবনির্মিত ভবনের উদ্বোধন করা হয়েছে। …

জনগনের স্বাস্থ্য নিয়ে কাউকে ছিনিমিনি খেলতে দেওয়া হবেনা-গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপি

পিপ : পাবনা সদর আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য ও পাবনা জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *