Tuesday , July 5 2022
Breaking News
Home / চাটমোহর / বিলচলন দ্বিমুখি উচ্চ বিদ্যালয়ে স্থায়ী জলাবদ্ধতা, দূর্ভোগে শিক্ষক-শিক্ষার্থী

বিলচলন দ্বিমুখি উচ্চ বিদ্যালয়ে স্থায়ী জলাবদ্ধতা, দূর্ভোগে শিক্ষক-শিক্ষার্থী

চাটমোহর প্রতিনিধি
পাবনার চাটমোহর উপজেলার ছাইকোলা ইউনিয়নের বরদানগরে বিলচলন দ্বিমুখি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে স্থায়ী জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। ফলে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের। এই বিদ্যালয়ের সামনেই অবস্থিতি বরদানগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। দুইটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাঠ একটাই। এই মাঠটিতে সারা বছর বছর পানি জমে থাকে। পানি নিষ্কাশন করার কোন ব্যবস্থা নেই। মাঠটি ভরাট করাও হচ্ছেনা। ফলে স্কুলের মাঠটি ব্যবহারের অনুপযোগি হয়ে পড়েছে।
গত সোমবার (২৩ মে) সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,গুমানী নদীর পাশে অবস্থিত স্কুলটির মাঠে পানি জমে আছে। অথচ নদীতে পানি নিষ্কাশনের কোন ব্যবস্থা নেই। এই স্কুলের চারপাশের পানি এসে পড়ে স্কুল মাঠে। জলাবদ্ধতার কারণে শিক্ষার্থীরা এসেম্বলি করতে পারেনা। চলতি বোরো মৌসুমে স্কুল মাঠে ও স্কুলের চারপাশে ধানের খড় শুকানো হচ্ছে। স্কুলের মাঠ ভরাটসহ নদী পর্যন্ত ড্রেন নির্মাণ করে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করা হলে স্কুলের মাঠটি ব্যবহার উপযোগি হবে বলে জানালেন এলাকাবাসী ও অভিভাবকরা।
স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ মিজানুর রহমান বললেন,উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি একাধিকবার জানিয়েছি। আবেদনও দেওয়া হয়েছে মাঠ ভরাটের জন্য। তিনি বলেন,স্কুলের মসজিদের পিছন দিয়ে গুমানী নদী পর্যন্ত ড্রেন নির্মাণ করে দিলে পানি নিষ্কাশন সম্ভব। স্কুল মাঠটি সংস্কার ও মাটি ভরাট করাও জরুরী।
স্কুলের সাবেক সভাপতি ও নিমাইচড়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান খোকন জানান,আমি স্কুলের উন্নয়নে মাননীয় সাংসদ সহ বিভিন্ন স্থানে আবেদন নিবেদন করে কাজ করেছি। মাঠটি ভরাটের চেষ্টা করেছি। এটি সংস্কার হওয়া খুবই জরুরী।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ মগরেব আলী জানান,শিক্ষার মান উন্নয়নে বর্তমান সরকার নানামুখি পদক্ষেপ নিয়েছে। স্কুলগুলোতে হচ্ছে বহুতল ভবন। সেক্ষেত্রে স্কুলের মাঠগুলোও সংস্কার হওয়া দরকার। এই স্কুলের মাঠের জলাবদ্ধতা দূরীকরণে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষে দৃষ্টি দেওয়া দরকার।

About admin

Check Also

ভাঙ্গুড়ায় অবৈধ ভাবে সরকারি রাস্তার গাছ কাটার অভিযোগ

ভাঙ্গুড়া প্রতিনিধিঃ পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলার পার-ভাঙ্গুড়া ইউনিয়নের পাথর ঘাটা বিশিপাড়া বাসিন্দা সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আফসার …

Leave a Reply

Your email address will not be published.