Sunday , October 2 2022
Breaking News
Home / পাবনা সদর / বিরিয়ানি খেয়ে পাবনা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের ৪০ শিক্ষার্থী অসুস্থ

বিরিয়ানি খেয়ে পাবনা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের ৪০ শিক্ষার্থী অসুস্থ

পুরান ঢাকার নান্না বিরিয়ানি হাউজের নামের একটি রেস্টুরেন্টের বিরিয়ানি খেয়ে পাবনা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের ৪০ জন শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়ে। অসুস্থদের মধ্যে ১৫ জনকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
রোববার (২৮ আগস্ট) বিকেল ৩টার দিকে পাবনা শহরের এ আর কর্ণারের পাশে পুরান ঢাকার নান্না বিরিয়ানি হাউজের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেন ওই কলেজের শিক্ষার্থীরা।
এ সময় অভিযুক্ত রেস্টুরেন্টের শাস্তি ও ভেজালমুক্ত খাদ্য পরিবেশনের দাবিতে বিভিন্ন শ্লোগান দেন। প্রায় ঘণ্টা ধরে অবস্থান নেয়ার পরে প্রশাসনের আশ্বাসে শিক্ষার্থীরা কলেজে ফিরে যান।
শিক্ষার্থীরা বলেন, গতকাল শনিবার কলেজের ফিস্ট আয়োজন করা হয়েছিল। এ জন্য ৪২টি বিরিয়ানির অর্ডার দেয়া হয়। রাতে সেগুলো শিক্ষার্থী খেয়ে একে একে অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে ১৫ জনের অবস্থার অবনতি হলে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেন, আসলে ঐতিহ্যবাহী পুরান ঢাকার নান্না বিরিয়ানির চমকপ্রদ নাম ব্যবহার করে এ সকল রেস্টুরেন্ট প্রতারণা করছে।আজ শিক্ষার্থীদের সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষায় অংশ নেয়ার কথা ছিল অসুস্থ অনেক শিক্ষার্থীর, কিন্তু তারা পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেননি। আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে আমরা বৃহত্তর আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করবো।
তবে অভিযোগ অস্বীকার করে পুরান ঢাকার নান্না বিরিয়ানি হাউজের ম্যানেজার সজিব হোসেন বলেন, গতকাল আমরা প্রায় ২শ মানুষের কাছে বিরিয়ানি বিক্রি করেছি। কিন্তু কেউ অভিযোগ দেন নাই। এই শিক্ষার্থীরা কিভাবে অসুস্থ হয়েছে আমরা বলতে পারছি না।
তিনি বলেন, পুরান ঢাকার নান্না বিরিয়ানির সাথে তাদের কোনও সম্পৃক্ততা নেই। শুধু মানুষের নজর কাড়তে এই নাম ব্যবহার করেছি।
পাবনা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের ফরিদা হলের প্রভোস্ট কামাল হোসেন বলেন, বিরিয়ানি খেয়েই একে একে শিক্ষার্থীরা অসুস্থ হয়ে পড়লে আমরা বিষয়টি পাবনার খাদ্য নিয়ন্ত্রক পরিদর্শকের কার্যালয় জানাই। তারা আমাদের এখানে এসে তথ্য সংগ্রহ করে নিয়ে গেছেন। এছাড়াও প্রয়োজনীয় সকল আইন প্রদক্ষেপ নেয়া হবে।
পাবনা জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের সহকারী পরিচালক জহিরুল ইসলাম বলেন, আমরাও বিষয়টি জেনেছি। দ্রুতই এসব রেস্টুরেন্টের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করা হবে এবং আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।
পাবনার সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম বলেন, আমরা শিক্ষাথীদেরকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরে অভিযোগ দিতে বলেছি। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যস্থা নেয়া হবে।

About admin

Check Also

রণেশ মৈত্রের মরদেহে ডেপুটি স্পীকারের শ্রদ্ধাঞ্জলি

জাতির পিতার একজন প্রিয় মানুষ ছিলেন রণেশ মৈত্র। সাংবাদিকতা ও সাহিত্যে তাঁর ছিল সাবলীল পদচারণা। …

Leave a Reply

Your email address will not be published.