Tuesday , July 5 2022
Breaking News
Home / সুজানগর / গমের ভুসি সহ গো-খাদ্যের দাম বাড়ায় বিপাকে কৃষক

গমের ভুসি সহ গো-খাদ্যের দাম বাড়ায় বিপাকে কৃষক

এম এ আলিম রিপন

ভারত গম রপ্তানি বন্ধ ঘোষণা করার পর থেকেই বেড়েছে আটা ও ময়দার দাম। সেই সাথে পাল্লা দিয়ে দফায় দফায় বাড়ছে পাবনার সুজানগর উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে গমের ভুসি সহ অন্যান্য গো-খাদ্যের দাম । বাজারে যেখানে ১ লিটার গাভীর দুধ বিক্রি হচ্ছে ৪০-৫০টাকা, সেখানে বর্তমানে এক কেজি গমের ভুসি কৃষককে কিনতে হচ্ছে ৫৫-৬০ টাকা দরে। এছাড়া খৈল ও খুদের দামেও রয়েছে বৃদ্ধির তালিকায়। ক্রমবর্ধমান এ দাম বৃদ্ধিতে বিপাকে পড়েছে গরু-ছাগল খামারের মালিক ও সাধারণ কৃষকেরা। গো-খাদ্যের অস্বাভাবিক দাম বৃদ্ধির কারণে দুধ উৎপাদন ও পশু মোটাতাজাকরণে ব্যয় বেড়েছে কৃষক ও খামারিদের। এতে করে গবাদি পশুপালনে হিমশিম খাচ্ছেন তারা। সরেজমিনে বুধবার সুজানগর পৌর বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, বর্তমানে খোলা বাজারে প্রতি কেজি গমের ভুসি বিক্রি হচ্ছে ৫৫- ৬০ টাকায়, চালের খুদ বিক্রি হচ্ছে ৩৭ টাকা ও খৈল বিক্রি হচ্ছে ৫০-৫৫ টাকা কেজি দরে। উপজেলার চরভবানীপুর গ্রামের গো-খামারি শাহীন বলেন, আমি ছোট বড় মোট ১২ টি গরু পালন করছি। যে ভাবে গমের ভুসি,খৈল,বুটের খোসা ও খুদসহ গরুর সব খাবারের দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। এখন গরু-ছাগল লালন পালন করাই কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। রাইপুর গ্রামের কৃষক আফছার আলী বলেন, আমার ৩ টি গাভীসহ ৮টি গরু ছিল। খড়, খৈল, গমের ভুসি ও খুদের যেভাবে দাম বেড়েছে সেই অনুযায়ী গাভীর দুধের দাম বাড়েনি। গাভী পালন করে মাত্র ৪০-৫০ টাকা লিটারে দুধ বিক্রি করে আর্থিক লোকসানে রয়েছি। এজন্য ৩ টি গরু বিক্রি করে এখন ৫টি গরু পালছি। পৌর বাজারের গো-খাদ্য বিক্রেতা মিলন হোসেন বলেন, আমাদের কিছু করার নেই। গমের ভুসি সহ অন্যান্য গো-খাদ্য বেশি দামে কিনে আনতে হয়। তাই বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। এবং এ ব্যবস্যায় বিনিয়োগও করতে হচ্ছে বর্তমানে আগের চেয়ে অনেক বেশি টাকা। উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ডা. আব্দুল লতিফ বলেন, পশুখাদ্যের দাম বৃদ্ধি পেলে উৎপাদন খরচও বেড়ে যায়।

About admin

Check Also

মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণ সহ ১১ দফা দাবিতে সুজানগরে সভা

এম এ আলিম রিপন মাধ্যমিক শিক্ষা জাতীয়করণ সহ ১১ দফা দাবিতে সুজানগরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত …

Leave a Reply

Your email address will not be published.